By May 11, 2017 Read More →

ব্যাংক লোন পাওয়ার ক্ষেত্রে একজন কনসালটেন্ট-এর ভূমিকা

আপনি কি এমন একজন ব্যবসায়িক ব্যক্তিত্ব, যিনি একটি ফোন করলে সরকারী বা বেসরকারী ব্যাংকের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা ১০০/২০০ কোটি টাকা লোন দেয়ার জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়েন? যদি না হন, তবে এই লেখাটি আপনার জন্য।

আপনি একজন উদ্যোক্তা, নতুন কোনো একটি প্রজেক্ট করতে চান, কিংবা, আছে এমন কোনো প্রজেক্টের উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য বিল্ডিং করতে আর মেশিন কিনতে চান। একাজে যত পরিমান টাকা লাগবে তার সম্পূর্নটা নগদ আপনার হাতে নেই। সুতরাং আপনি কোনো একটি ব্যাংক থেকে লোন নিতে ইচ্ছুক।

কিন্তু আপনি চাইলেন, আর ব্যাংক লোন দিয়ে দিল, ব্যাপারটা এতটা সহজ সরল নয়।

আপনাকে টাকা ধার দেয়াটাই ব্যাংকের কাজ। এটাই তাদের ব্যবসা। ধার দেয়ার মত লোক না পেলে ব্যাংকের ক্ষতি, কারন তাতে তার আয় রোজগার বন্ধ হয়ে যাবে। কিন্তু আপনাকে ব্যাংক যতই ধার দিতে চাক, অনেক নিয়ম নীতির ভেতর দিয়েই তাদের এই কাজটি করতে হবে। আর আপনাকেও করতে হবে অনেক কিছু, যেগুলো সফলভাবে করার অভিজ্ঞতা হয়তো আপনার নেই।

আর ঠিক এখানেই একজন ব্যাংক লোন কনসালটেন্ট বা পরামর্শকের সাহায্য নেয়াটা জরুরী। একজন পরামর্শক আপনাকে নিম্নোক্ত উপায়ে সাহায্য করতে পারেন।

আপনি ব্যাংক লোন পাওয়ার যোগ্য কিনা?

সহজ কথা, আপনি যোগ্য না হলে আপনি ব্যাংক লোন পাবেন না। এই যোগ্যতার কিছু মাপকাঠি আছে। আপনি যোগ্য কি না, একজন অভিজ্ঞ পরামর্শক বলতে পারবেন। না হলে, তিনি আপনাকে পরামর্শ দেবেন কিভাবে যোগ্য হওয়া যায়।

আপনার প্রজেক্ট ব্যাংক লোন পাওয়ার যোগ্য কিনা?

আপনার হৃদয়ে উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন আছে। কিংবা আপনি আপনার ছোট ব্যবসাকে আরো বড় করার স্বপ্ন দেখছেন। দুঃখজনক বিষয় হলো, শুধু সেটাই যথেষ্ট নয়। আপনার পরিকল্পনাটিকে অর্থনৈতিকভাবে লাভজনক প্রমানিত হতে হবে।

একজন পরামর্শক আপনার পরিকল্পনাটি মনোযোগ দিয়ে শুনবেন। বিশ্লেষন করবেন – ফাইনানশিয়ালি এবং টেকনিক্যালি। তিনি রিস্ক ফ্যাক্টরগুলো নিয়ে আপনার সাথে আলোচনা করবেন। রিস্কগুলো কিভাবে মোকাবেলা করা যায়, সে বিষয়ে আপনাকে পরামর্শ দেবেন। আপনার খরচ কিভাবে কমানো যায়, কিভাবে আপনার অপারেশনাল খরচ কমিয়ে মুনাফা বাড়ানো যায়, সে ব্যাপারগুলো সম্পর্কে আপনাকে ধারনা দেবেন।

লোনের মার্জিন, ইকুইটি, ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল নিয়ে যদি আপনার কোনো সমস্যা থাকে, তবে সমাধানের উপায় বাতলে দেবেন।

এরপর তিনি প্রজেক্টের একটা প্রোফাইল (প্রজেক্ট প্রপোজাল) তৈরী করে দেবেন, মূলতঃ এটাই ব্যাংক লোনের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন ডকুমেন্ট।

এরপর আপনি চাইলে তিনি আপনাকে একটি ক্রেডিট রেটিং-এর ব্যবস্থা করে দেবেন, যেটা লোন পাওয়ার ক্ষেত্রে আজকাল ম্যান্ডেটরি। লোন পেতে হলে ক্রেডিট রেটিং-এর স্কোর ভালো হওয়া খুব জরুরী। একজন অভিজ্ঞ পরামর্শক আপনাকে এ ব্যাপারেও পরামর্শ দিতে সক্ষম।

আপনার প্রজেক্টের আরো কিছু প্রয়োজনিয় ডকুমেন্ট তৈরী হয়ে গেলে, আপনার প্রস্তুতি শেষ। এখন ব্যাংকের সাথে দর কষাকষির পালা।

ব্যাংকিং জগৎটা বিশ্বাসের উপর ভিত্তি করে চলে। একজন অভিজ্ঞ পরামর্শক তার যোগাযোগ ব্যবহার করে আপনার লোনটি এপ্রুভ করার বিষয়ে উল্লেখযোগ্য ভুমিকা রাখতে পারেন।

আপনার প্রজেক্টের ধরন অনুযায়ী সরকারী বা বেসরকারী কোন ধরনের বা কোন পার্টিকুলার ব্যাংক-এ যেতে হবে, তিনি সে ব্যাপারেও আপনাকে স্বিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করবেন।

মোট কথা, আপনার লোন পাওয়ার ব্যাপারে যতকিছু করা দরকার, সব ব্যাপারেই একজন পরামর্শক আপনাকে সাহায্য করতে পারেন।

তবে এর মাঝেও কথা আছে। কিছু কিছু জিনিস আছে, যেগুলো শুধুই আপনার ব্যাপার। কিছু নূন্যতম যোগ্যতা আপনারই থাকতে হবে, এই নূন্যতম যোগ্যতার ব্যাপারে আপনাকেই পদক্ষেপ নিতে হবে। হাজার হোক, প্রজেক্ট আপনার, ব্যবসা আপনার, কিছু তো আপনার করতে হবে, তাই না?

তাহলে, আজ এ পর্যন্তই। আমরা আপনার উদ্যোক্তার জীবনকে স্বাগত জানাই।

আপনার যদি কখনও কোনো পরামর্শকের দরকার হয়, তাহলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে ভুলবেননা। আমাদের সাথে এখানে যোগাযোগ করতে পারেন। আমাদের আছে দীর্ঘ অনেক বছরের ব্যাংক লোন পাইয়ে দেয়ার অভিজ্ঞতা। এছাড়া আমরা প্রজেক্ট প্রপোজাল তৈরী ও ক্রেডিট রেটিং-ও করে থাকি।

সবাইকে ধন্যবাদ।

Comments

comments

Posted in: Blog

Comments are closed.